হুজুগে বাঙ্গালীর রসিকতা ও কেকা ফেরদৌসী

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শামীমা জামান

কেকা ফেরদৌসি তার শবরী কলার মত আঙ্গুল ঘুরিয়ে আস্ত মুরগীর পেট কেটে নুডলস ভরে দিলেন। ওদিকে মুরগী চিৎকার দিয়ে উঠলো –আল্লাহ তোমার কাছে বিচার দিলাম …। না হেসে কই যাবেন। কিন্তু হচ্ছেটা কি এসব আসলে ? কেকা ফেরদৌসিকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম গুলিতে অনেকদিন ধরে যে অসামাজিক ট্রল চলছে তাতে কম বেশি আমরা সকলেই নির্মল বিনোদন হিসেবে অংশ নিচ্ছি। ইউটিউবে তাকে নিয়ে ভিডিওর পর ভিডিও আপলোড হচ্ছে। কেউ কি ভেবে দেখেছেন কেকা ফেরদৌসি কিন্তু হিরো আলম এর মত স্থুল কোন চরিত্র নয়। আজ ট্রলে ট্রলে তার ব্যক্তিত্ব কে ভাড়ে রূপান্তরিত করা হয়েছে। আর বাজে মন্তব্যের তো কোন লাগাম নেই।রীতিমত নেগেটিভ একজন অরুচিকর মহিলা হিসেবে তাকে নিয়ে চলছে হাসি তামাশা। আসলে মানুষ হিসেবে তিনি কেমন?

১২ বছর আগের কথা। চ্যানেল আই এর একটি প্রোগ্রামে গিয়েছি। অনুষ্ঠান শুরু হয়নি। আমন্ত্রিত অতিথিরা তেমন একটা এসে পৌঁছাননি। চ্যানেল আই এর অনুষ্ঠানে সামনের সারির সোফা মানে নায়ক রাজ রাজ্জাক সহ  কিংবদন্তী দের মিলন মেলা। আমি দ্বিতীয় সারির একটি চেয়ারে বসতে গেলাম। বর স্টেজে পারফর্ম করবে সে চলে গেছে মেকআপ নিতে। সামনের সারিতে কেকা আপা একা বসেছিলেন।  হাত দিয়ে ডাকলেন। তাঁর পাশের জায়গা দেখিয়ে অত্যন্ত আন্তরিক গলায় বললেন ‘এখানে বসেন না ।‘ আমি বসতেই উনি এমন ভাবে গল্প শুরু করলেন যেন আমি উনার কত দিনের পরিচিত! এমন নয় যে উনার সঙ্গে আমার আগে কথা হয়েছে বা আমার পাশে আমার স্বামীকে দেখেছেন। আমি না হয়ে অন্য কেউ হলেও এমন সুন্দর আন্তরিক ভঙ্গিতেই কথা বলতেন উনি। মানুষ টাই যে অনেক অমায়িক। তো এরকম একজন সাধারণ ভাল মানুষ এর সঙ্গে যে অসভ্যতা করা হচ্ছে ,সামাজিক জীবনে তিনি হেয় প্রতিপন্ন হচ্ছেন (সামাজিক অনুষ্ঠানে দূর থেকে তাকে দেখে কি গাল চেপে আপনিও হাসেন না ) এই অধিকার তো আপনাকে আমাকে দেওয়া হয়নি।

  মানলাম উনি আবোল তাবোল রান্না করেন।উনার নুডুলস এর আচার এর রেসিপি দেখে আমিও ভেবেছি নুডুলস নিজেই একটি প্রসেস ফুড ,একে আচার করার কি মানে। কিন্তু এই বিশেষ নুডুলস এর বিজ্ঞাপনী রান্নার অনুষ্ঠানের আগে এত বছর যে তিনি এত এত ভাল রান্না দেখিয়েছেন,ইতিহাস ঐতিহ্য কে সামনে রেখে ,আঞ্চলিক রান্না, দেশ বিদেশের রান্না সে সব সবাই ভুলে গেলেন? তার  অনুষ্ঠানে গেস্ট কে তিনি কথা বলতে দেন না। সে নিয়েও কত রঙ্গ। কেন উনি কথা বলতে দেন না নিজেই সব বলেন তা কি ট্রল ওয়ালারা জানেন? আমার রুমমেট তার কয়েকটি অনুষ্ঠানে অতিথি হয়ে গেছেন। তিনি তো গরম পানি আর চা ছাড়া কোন রান্না জানেন না।  এখন কেকা আপার রেসিপি কেকা আপা গেস্ট কে থামিয়ে দিয়ে নিজেই বলে তাকে উদ্ধার করেন মাত্র।

 আমাদের এই অসহনীয় জীবন যাত্রায় একটু নির্মল হাসির বড় অভাব সত্যি। কিন্তু তাই বলে নিরপরাধ মায়ের বয়সী একজন রন্ধন শিল্পীকে নিয়ে এতটা বাড়াবাড়ি খুব অমানবিক যখন তিনি মানুষ হিসেবে ইতিবাচক চরিত্রের। সমাজের কজন নেতিবাচক চরিত্রের হম্বি তম্বিদের নিয়ে এমন রঙ্গ করেন আপনারা ? নেতিবাচক মানুষের নেতিবাচক ভুমিকা গুলো নিয়ে ট্রল করুন না। তাতে বিনোদনের সঙ্গে সামাজিক সচেতনতা ও ফুটে উঠুক।আমেরিকায় তো ট্রাম্পের নাঙ্গা মূর্তি ও রাস্তায় দাড় করানো হয়। এদেশে কার ঘাড়ে কয়টা মাথা যে কোন গঠনমূলক সমালোচনা করে রাস্ট্রের নীতি নির্ধারক দের। তাই নিরীহ মানুষদের নিয়ে এইসব শয়তানি বন্ধ করুন।হাসতে মন চাইলে একে অন্যকে কাতুকুতু দিয়ে হাসুন।

ছবি: গুগল

প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন amar@pranerbangla.com