স্বাধীন দেশে সবাই স্বাধীন

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ইকবাল বাহার (উদ্যোক্তা)

ফেইসবুক এর গরম আড্ডা চালাতে পারেন প্রাণের বাংলার পাতায়। আমারা তো চাই আপনারা সকাল সন্ধ্যা তুমুল তর্কে ভরিয়ে তুলুন আমাদের ফেইসবুক বিভাগ । আমারা এই বিভাগে ফেইসবুক এ প্রকাশিত বিভিন্ন আলোচিত পোস্ট শেয়ার করবো । আপানারাও সরাসরি লিখতে পারেন এই বিভাগে। প্রকাশ করতে পারেন আপনাদের তীব্র প্রতিক্রিয়া।

স্বাধীন দেশে এতটাই স্বাধীনতা আমরা পেয়ে গেছি যে রাস্তা ঘাঁটে স্বেচ্ছাচারিতা চরমে উঠছে!!! নিজের ব্যাপক স্বাধীনতার ব্যাবহারের কারণে অন্যের ন্যূনতম অধিকার নষ্ট হচ্ছে কিনা তা ভাবার বিবেক নষ্ট হয়ে গেছে !

ঢাকা শহরসহ দেশের সব মহাসড়ক গুলোতে কি ড্রাইভার কি গাড়ির মালিক কেউই ন্যূনতম নিয়ম মেনে গাড়ী চালায় না। যানজটের অনেকগুলো কারণের মধ্যে এটাও একটা বড় কারণ।

সারা পৃথিবীর মধ্যে একমাত্র বাংলাদেশে ট্রাক/কাভার্ড ভ্যান/লরি রাস্তার ডান দিকের লেন দিয়ে চলে এবং দ্রুতগামী গাড়ীগুলো বাম দিকের লেন দিয়ে তাদের কে ওভারটেক করে!!! পৃথিবীর কোথাও এই নিয়ম নাই।

গাড়ীগুলো যত তাড়াতাড়ি পথ অতিক্রম করে রাস্তা থেকে নেমে যাবে ততো রাস্তায় গাড়ির চাপ কম থাকবে। কিন্তু ট্রাকগুলো কচ্ছপের মত রাস্তার প্রথম লেনে চলে এবং তাদেরকে ওভারটেক করতে প্রতিটি গাড়ির প্রয়োজনের চেয়ে অনেক বেশী সময় লাগে রাস্তার বাম দিক দিয়ে ওভারটেক করার কারনে। আবার তারা নিজেরা নিজেরা যখন ওভারটেক করে তখন ২ কচ্ছপ পুরু মহাসড়ক দখল করে রাখে।

মাননীয় যোগাযোগ ও সেতু মন্ত্রী এদেরকে ৫০০০ টাকা করে জরিমানা করুন। দেখবেন রাতারাতি মহাসড়ক ঠিক হয়ে গেছে। মহাসড়কে পুলিশের নজরদারি বাড়ানো দরকার, এখানে ইনভেস্ট করুন। শৃঙ্খলা আসবে।

ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কে আরও কিছু বিষয় খুবই জরুরী ভাবে বাস্তবায়ন করা দরকার তাহলে জনগন ৪ লেন রাস্তার সুবিধা পাবেঃ
১। মেঘনা ও দাউদকান্দি সেতু দুটি ও মহাসড়ক একসঙ্গে ৪ লেন করা দরকার ছিল। ওখানেও ঢাকার ছোট ছোট ফ্লাইওভারের মত অবস্থা, সারাক্ষন যানজট লেগেই আছে – ৪ লেন মহাসড়ক সেতুতে গিয়ে ২ লেন হয়ে যায়। খুব দ্রুত এই সেতু দুটির কাজ শেষ করা দরকার।

২। খুবই অদ্ভুত ২ টি টোল প্লাজা ! মহাসড়কে এত ধীর গতির টোল প্লাজা কল্পনাই করা যায় না। ওজন মাপার নামে ওখানে চলছে তুঘলকি কাণ্ড ! কিছুক্ষন পর পর টোল দিতে গিয়ে গাড়ী গুলোকে আবার পিছনে আসতে হয় কারণ সিস্টেম হ্যাংগ করে। আবার গাড়ী পিছনে এলে সিস্টেম রিস্টার্ট হয়, তারপর টোল দিতে হয়। ভয়ঙ্কর পদ্ধতি!
অতিরিক্ত ওজনের কারণে কোন লরি/ট্রাককেই সেতুতে উঠতে বাধা দেয়া হয় না, কিছু টাকা দিলেই ছেড়ে দেয় – যাক নষ্ট হয়ে দেশের সম্পদ !!!

৩। সিএনজি বেবি ট্যাক্সিগুলো ব্যাপক হারে মহাসড়কে চলছে এবং বেশীর ভাগ ক্ষেত্রেই রাস্তার উলটো দিক দিয়ে চলছে।

৪। মোটর চালিত রিকশা চলছে মহাসড়কে উল্টো দিক দিয়ে।

৫। বিপদজনক ভাবে পথচারী মহাসড়কের রাস্তা পারাপার করছে।

৬। কিছু কিছু বাজার মহাসড়কে ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি করছে।

যাদের বিবেক নেই তাদের একমাত্র ঔষধ জরিমানা ও শাস্তি!

ছবি:লেখক

Posted by Iqbal Bahar Zahid on Tuesday, December 26, 2017

প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন amar@pranerbangla.com