শক্তি কইলো সেক্সের গান করতে হইব-শচীন কর্তা

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

‘‘আরে জাননি, শক্তি সামন্ত একটা ছবি করতাসে। আমারে কইল সুর দিতে। কইল সেক্সের গান করতে হইবো। কী হইল জানস…।’’ বহুকাল আগে এক ঘরোয়া আড্ডায় নিজের জীবনস্মৃতি বলতে গিয়ে এমনি ভাষাতেই গল্পের ঝাঁপি খুলেছিলেন বাংলা গানের জগতের প্রবাদ পুরুষ শচীন দেব বর্মন। সঙ্গীতপ্রেমীদের কাছে তিনি ছিলেন শচীনকর্তা।
আড্ডাটা ছিলো গায়ক, অভিনেতা আর চিত্র পরিচালকদের।গল্পের শুরুটা শুনেই সেদিন নড়েচড়ে বসেছিল মজলিশ।
কথায় কথায় আবার বলেছিলেন, ‘‘বহু কাল আগের একটা কথা মনে পইড়্যা গেল। এক ব্যাটার বাড়িতে গেছিলাম। তারে ডাকতাছি। কিছুতেই আর বাইর হয় না। অনেক পরে ঘরের থেইক্যা বাইরে আইল। দিলাম ব্যাটারে বকা। কয় কী, ‘কর্তা মাফ করেন। পোলাডারে বিয়া দিমু আইজকা, তাই কাপড় পরাইতাছিলাম।’ কর্তা তো অবাক! এত অল্প বয়সে বিয়ে! প্রশ্ন করতে লোকটি বললেন, এখন দেওয়াই ভাল। নইলে ছেলে পরে বিগড়ে যেতে পারে!
সেই ভদ্রলোকের সঙ্গে কথা বলতে বলতে শচীন দেব দেখেছিলেন কাছেই ছোট্ট একটি মেয়ে খেলছে। বিয়ের কথায় ছোট মেয়েটি নিজের মনেই হাসতে হাসতে গান ধরেছিল, ‘কালকে যাব শ্বশুরবাড়ি/ আহ্লাদে খাই গড়াগড়ি/ দেখব তোরে প্রাণ ভরে সুন্দরী…’আর গান শুনেই সে দিন শচীন দেববর্মন ঠিক করে ফেলেন, এই সুরই শক্তির ছবিতে দেবেন। লয় কমিয়ে গাওয়াবেন কিশোরকুমারকে দিয়ে। সকলের তখন একটাই প্রশ্ন, কোন গান? গল্পের ক্লাইম্যাক্সে পৌঁছে শচীনকর্তা হেসে হারমোনিয়ামের বেলো টেনে প্রিলুড বাজিয়ে বলেন, ‘‘ঠিক কইরা ফালাইলাম, কিশোরকে কমু জোরে জোরে একটু নিশ্বাস ফালাইতে। তা হলেই সেক্সের গান হইয়া যাইব। সেই হইয়া গেল, ‘রূপ তেরা মস্তানা।’
শুধু কলকাতা নয়, মুম্বাইতেও তাঁকে নিয়ে নানা গল্প ছড়িয়ে আছে। নিজের স্মৃতি থেকে তেমন নানা গল্প শুনিয়েছেন গীতিকার পুলক বন্দ্যোপাধ্যায়। শচীনকর্তা তাঁকে নিজের গান তৈরির বিচিত্র সব গল্প শোনাতেন। লতার সঙ্গে কাজের অভিজ্ঞতা, প্রথম যুগ্ম বাণিজ্যিক সাফল্যের গান, আরও কত কিছু। তখন বড় সুরকারদের নিজস্ব মিউজিক রুম থাকত স্টুডিয়োতে। এক দিন সকাল সকাল মিউজিক রুমে গিয়েছেন শচীনকর্তা। ঢুকেই হতবাক! স্টুডিয়োতে চা-জল দেয় যে ছেলেটি, সে আপন মনে পিয়ানো বাজিয়ে চলেছে। সুরটা কানে যেতেই চুপিচুপি কর্তা নোটেশন নিতে শুরু করলেন। ছেলেটি থামতেই, ফের বাজাতে বললেন তাকে। সে তো শুনেই ভয় পেয়ে গিয়েছে। ভাবছে, আজই তার চাকরির শেষ দিন!
সটান কর্তার পায়ে পড়ে সে বলল, ‘‘ভুল হয়ে গেছে সাহেব। এ বারের মতো মাফ করে দিন।’’
রিনরিনে মেলোডিতে বুঁদ হয়ে কর্তা হাসছেন তখন। বললেন, ‘‘মাফ তো করে দিলাম। তুই যে আমাকে কী দিলি, তা জানিস না।’’
সেই ১৯৫১-তেই মহেশ কাউল-এর ‘নওজওয়ান’ ছবিতে লতা মঙ্গেশকরের জন্য সুর করলেন। তৈরি হল বিখ্যাত সেই গান— ‘ঠান্ডি হাওয়ায়ে লেহ্‌রাকে আয়েঁ।’

বিনোদন ডেস্ক
তথ্যসূত্রঃ ইন্টারনেট
ছবিঃ গুগল

প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন amar@pranerbangla.com