রাজি হয়েছিলেন সুচিত্রা সেন

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

‘রাজি হবেন তো মিসেস সেন?’ শুধু এই প্রশ্নটাই সেদিন ঘুরছিলো কলকাতার মেগাফোন কোম্পানীর কর্ণধার কমল ঘোষের মনে। কিন্তু তবুও সাহসে বুক বেঁধে প্রস্তাবটা তিনি নিয়ে গিয়েছিলেন সুচিত্রা সেনের কাছে।তাঁর গাওয়া গান নিয়ে একটা লং প্লেইং রেকর্ড প্রকাশ করতে চান তিনি। তাকে অবাক করে দিয়ে সেইর প্রস্তাবে সম্মতি জানিয়েছিলেন বাংলা সিনেমার অবিস্মরণীয় নায়িকা সুচিত্রা সেন। আর নতুন গান বেঁধে, সুর করে সে রেকর্ড বাজারে রিলিজও হয়েছিলো।

সময়টা ১৯৫৯ সাল।পুজা আসতে তখনও বেশ দেরি। জুলাইয়ের শেষদিকে  হঠাৎই একটি খবর দেখে চমকে উঠলো সবাই। কলকাতারই একটি রেকর্ড কোম্পানি থেকে বের হচ্ছে এক ‘নবাগতা’র গানের প্রথম রেকর্ড।এরকম ঘটনা তখন প্রায় প্রতিবছরই ঘটতো। আসলে সবাই চমকে গিয়েছিলো নবাগতা গায়িকার নাম দেখে। যিনি গান গেয়েছেন, তাঁর নাম সুচিত্রা সেন!

মনে করা যেতে পারে, একটা বাইক ছুটে চলেছে রাস্তা দিয়ে। চালকের আসনে উত্তমকুমার। ঠোঁটে সেই বিখ্যাত হাসিটা ঝুলছে। আর তাঁর পেছনে বসে আছেন বাংলা সিনেমার সেই স্বপ্নের নায়িকা সুচিত্রা সেন। ‘সপ্তপদী’, ‘অগ্নিপরীক্ষা’, ‘হারানো সুর’, ‘সবার উপরে’, ‘সাগরিকা’— একের পর এক সিনেমায় যার অভিনয় দেখে মুগ্ধ দর্শক। আর শুধুই কি সিনেমা? সুচিত্রার লিপে অমরত্ব পেয়েছে তখন একের পর এক গান। নিখুঁত ঠোঁট মেলানোর কাজটাও তিনি করতেন দারুণ নৈপুন্যের সঙ্গে? মাঝে মাঝে অবাক হয়ে যেতেন খোদ গায়িকা সন্ধ্যা মুখোপাধ্যায়ও। এত বিখ্যাত গানের জন্ম দিয়েছেন দুজনে; কিন্তু ওই লিপ দেওয়ার ক্ষমতা অবাক করে দিত সবাইকে।

সেই রেকর্ডে কী গান গেয়েছিলেন সুচিত্রা সেন? গৌরীপ্রসন্ন মজুমদার লিখেছিলেন সেই গানের কথা। ‘আমার নতুন গানের নিমন্ত্রণে’, আর ‘বনে নয় আজ মনে হয়’। দুটি গানেই সুর করেছিলেন রবীন চট্টোপাধ্যায়। আর কণ্ঠে সুচিত্রা সেন! তৈরি হলো রেকর্ড।

সুচিত্রা সেনকে নিয়ে যারা গবেষণা করেন তাদের বক্তব্য হচ্ছে, সঙ্গীতচর্চা তাঁর মধ্যে অবশ্যই ছিলো। তাদের বাড়িতেও গানের চর্চা ছিলো ছোটবেলায়। পরবর্তীকালে দেখেছি, তাঁর সঙ্গে শান্তিনিকেতনেরও যোগাযোগ ছিলো।

এই দুটি গানের পর আর কখনোই তিনি রেকর্ড প্রকাশের দিকে আর পা বাড়াননি। নায়িকা সুচিত্রা সেনের আড়ালেই থেকে গেছে গান গাইতে জানা মানুষটি।

প্রাণের বাংলা ডেস্ক
তথ্যসূত্রঃ ফিচার, কলকাতা
ছবিঃ গুগল

প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন amar@pranerbangla.com