বড় অদ্ভুত এই জীবন

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ফেইসবুক এর গরম আড্ডা চালাতে পারেন প্রাণের বাংলার পাতায়। আমারা তো চাই আপনারা সকাল সন্ধ্যা তুমুল তর্কে ভরিয়ে তুলুন আমাদের ফেইসবুক বিভাগ । আমারা এই বিভাগে ফেইসবুক এ প্রকাশিত বিভিন্ন আলোচিত পোস্ট শেয়ার করবো । আপানারাও সরাসরি লিখতে পারেন এই বিভাগে । প্রকাশ করতে পারেন আপনাদের তীব্র প্রতিক্রিয়া।

লীনা ফেরদৌস

রাত সাড়ে ন’টা, বিষণ্ণ মন আর ক্লান্ত শরীরে ল্যাব এইড হাসপাতাল থেকে এসে পৌছুলাম আল-মারকাজুল ইসলামী হাসপাতালে, আমাদের সঙ্গে বিশাল এম্বুলেন্সে সাদা কাপড়ে মোড়া মানুষটি শুয়ে আছে খাটিয়ায়।

বাইরে তখন অঝোর ধারায় বৃষ্টি, অবিরাম বৃষ্টির জন্য রাস্তা ঘাট কেমন শুনশান- অদ্ভুত। এম্বুলেন্স থেকে নামিয়ে খাটিয়াটা নেওয়া হল গোসল খানার সামনের করিডোরে। লোবান-আতরের গন্ধ আর গোসলের পানির শব্দ মিলে-মিশে জায়গাটাকে কেমন যেন মোহা-ছন্ন করে রেখেছে, এর মাঝেই অসহায়ের মত বসে আছি আমরা ক’জন আল- মারকাজুলের রিসিপশনে। চোখের সামনে কাঠের কফিন, সাদা কাফন-খাটিয়া সেখানেই শুয়ে আছে লাশ। হ্যাঁ, এখন এই নামেই ডাকছে সবাই তাকে, অথচ আজকে বিকেলেও এই মানুষটি ছিল কারো বাবা, ভাই, চাচা কিংবা মামা।

আমরা সবাই বসে আছি এক জায়গায়, কিন্তু আমাদের সেই স্বজনটি মুহূর্তেই আমাদের থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে একা শুয়ে আছে দুরে, তাকে রাখা হয়েছে গোসলখানার সামনে। আমরা সবাই অপেক্ষায় আছি কত দ্রুত গোসল শেষ হবে আর তাকে রওনা করিয়ে দেব তার শেষ গন্তব্যে। আমাদের কারো সময় নাই এখন আর তার জন্য- বার বার সবাই ঘড়ি দেখছি, কত দ্রুত কাজটা শেষ হবে, শেষ কর্তব্য করে ফিরে যাব নিজের বাড়িতে। সবার কত কাজ, কত আপন জন অপেক্ষায় রয়েছে আমাদের- কারো জন্য অপেক্ষায় আছে তার ছোট্ট শিশু, উদ্বিগ্ন বৃদ্ধ মা, কারো সন্তানেরা ক্ষুধা পেটে অপেক্ষায় আছে বাবা মায়ের ঘরে ফিরে আসার। আমাদের জাগতিক বিষয় সবাইকে এত বেশী ব্যস্ত করে রেখেছে যে এই জগৎ ছেড়ে যাওয়া মানুষটার জন্য এখন আর আমরা সময় নষ্ট করতে চাইছি না। মানুষটা মুহূর্তেই ছিটকে চলে গেল তার আপন জনের কাছ থেকে দুরে, আর আপন জনেরা মুহূর্তেই ভুলে গেল এত দিনের এত স্নেহ, ভালবাসা আর সম্পর্ক।

একের পর এক লাশ চলে আসছে, করিডোরে শুয়ে আছে সার সার গোসলের অপেক্ষায়। গোসলে লম্বা লাইন আর আ্মাদের অ-সহিষ্ণু সময়। একসময় আমাদের সঙ্গে আসা মৃত মানুষটির গোসল শেষ হল, কফিনের ভেতর প্লাস্টিক বিছানো হল, ছড়ানো হল চা পাতা, বরফ, লোবান, সাদা কাপড়ে মোড়া দেহটা তড়িঘড়ি করে ঢোকানো হল কফিনে, এ্যাম্বুলেন্সে উঠানো হল… বিকট শব্দে এ্যাম্বুলেন্স রওনা দিল তার শেষ গন্তব্যে…

আহা ! এত বছরের কত বিচিত্র এবং ঘটনা বহুল জীবন, কত শত সম্পর্ক, কত স্মৃতি, আদর- স্নেহ-ভালবাসা, কত জমি-জমা, ধন -সম্পদ, সব কিছু পড়ে রইল আর মানুষটার নিথর দেহটা কত দ্রুত মাটি চাপা দেওয়া যায় তার আয়োজনে ব্যস্ত হয়ে গেলাম আমরা।

কি অদ্ভুত আমাদের জীবন তাই না !

ছবি: গুগল

 

প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন amar@pranerbangla.com