বাংলাদেশের চেয়ে সবদিক দিয়েই এগিয়ে শ্রীলংকা

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আহসান শামীম: ১৫৬ রানের টার্গেটা শ্রীলংকার জন্য তেমন কিছুই ছিল না । প্রথম টি টুয়েন্টিতে কুশল পেরেরা  ৫৩ বলে ৭৭  রানের সুবাদে ৬ উইকেটেই হারিয়ে দেয় টাইগারদের ।বাংলাদেশের সিনিয়র ব্যাটসম্যানদের ব্যার্থতায় বড় রানের টার্গেট দিতে ব্যর্থ হয় বাংলাদেশ । বল হাতে মাশরাফির জোড়া আঘাতের পরও দলের স্কোর বোর্ড সচল রাখেন ওপেনার পেরেরা। তাঁর হাত ধরেই সহজে জয়ের টার্গেটে পৌঁছে যায় শ্রীলংকা । ম্যাচ সেরা পেরেরার উইকেট নেন তাসকিন।

টি-টুয়েন্টি ফরম্যাটে বাংলাদেশের চেয়ে সবদিক দিয়েই এগিয়ে শ্রীলংকা। সর্বশেষ দুটি টি-টুয়েন্টি সিরিজে অস্ট্রেলিয়া এবং দক্ষিণ আফ্রিকার মতো শক্তিশালী দলকে হারিয়েছে তারা। প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে ১১টা টি-টুয়েন্টি ম্যাচের দশটাতেই হেরেছে লঙ্কানরা। আর এই মাঠে নিজেদের সর্বশেষ ৬ ম্যাচেই পরাজয়ের মুখ দেখেছে স্বাগতিকরা।

টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন  টাইগার অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। আবহাওয়া আর পরিসংখ্যন টাইগার অধিনায়কের এমন সিদ্ধান্তে  সবাইকে অবাক করেছে । যেমন করেছিল শেষ ওয়ান ডে ম্যাচে। সেই ম্যাচেও ৭০ রানে হেরেছিল বাংলাদেশ ।  আরও অবাক করার বিষয় ছিল টি টুয়েন্টি থেকে মাশরাফির অবসরের ঘোষনা। টেষ্ট ওয়ান্ডের পর মিরাজের অভিষেকটা আশা করেছিলেন সবাই । অনুশীলনে হাঁটুর চোট মিরাজের টি টুয়েন্টি অভিষেক হলো না । অভিষেক হলো পেসার আল রাউন্ডার সাইফুদ্দিনের । প্রেমাদাস স্টেডিয়ামে ২৫ তম টি টুয়েন্টি ম্যাচের শুরুটা বৃষ্টির কারনে শুরু হতে দেরী হয় । প্রেমাদাসার স্টেডিয়ামে বৃষ্টির সঙ্গে লড়াই শেষে ব্যাটিংএ নেমেই বড় ধাক্কা খায় বাংলাদেশ দল। ইনিংসের দ্বিতীয় বলেই ইনসুইংয়ে তামিমের স্ট্যাম্প উড়িয়ে দেন লঙ্কান ফাস্ট বোলার লাসিথ মালিঙ্গা। ৫.১ তম ওভারে দলীয় ৫৭ রানের মাথায় সাব্বিরের রান আউট আর ৫.৫ তম এভারে সন্জয়ের বলে সৌম্য সরকারের পেপার হাতে ক্যাচ আউট  চাপে ফেলে  বাংলাদেশকে । এরপর ৩ উইকেট হারিয়ে  মুশফিক আর সাকিব দলের হাল ধরার চেষ্টা।  ৭১ রানের মাথায় মুশফিক  খারাপ শট খেলতে গিয়ে গুরারত্ন্নের বলে বোল্ড আউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন । এসময় খেলায় অধিপত্য বিস্তার করে শ্রীলংকা । দলের রান রেট কমে ৭.৭৪ এ চলে যায় । ১১.১ তম ওভারে প্রসানার বলে ক্যাচ আউট হন।  দলীয় ৮২ রানের মাথায় । সাব্বিরের আর সৌম্য সরকার আউটের পর ৭ ওভারে বাংলাদেশ ২১ রান সংগ্রহ করে । সৈকত আর রিয়াদ ধীর গতিতে বিপর্যস্ত বাংলাদেশের হাল ধরে ৩৮ বলে ড৫০ রানের জুটি গড়েন । ১৮.১ ওভারে ২৬ বলে ৩১ রান করে মালিঙ্গার বলে বোল্ড হল দলীয় ১৩৯ রানের মাথায় । রিয়াদের পর মাঠে নামেন টাইগার অধিনায়ক মাশরাফি ।সৈকত ৩০ বলে ৩৪ রানে মাশরাফি ৫ বলে ৯ রানে অপরাজিত থেকে ২০ ওভারে ১৫৫ রান করেন । স্মরণযোগ্য এই উইকেটে গড় প্রথম ইনিংসের রান ১৫৪ । ৬  এপ্রিল  একই মাঠে  টি টুয়েন্টির সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচ ।

ছবিঃ ইএসপিএন

 

প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন amar@pranerbangla.com