বদলে যাচ্ছে অ্যামস্টাডার্মের পতিতালয়

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বদলে যাচ্ছে অ্যামস্টাডার্মের বিখ্যাত পতিতালয়ের অবয়ব, হয়তো ভবিষ্যতও। সেখানকার পৌরসভা এভাবে প্রকাশ্যে দেহ ব্যবসার দিক থেকে খানিকটা মুখ ফিরিয়ে নিতে চাইছেন। বিশ্বজুড়ে নেদারল্যান্ডের অ্যামস্টাডার্মের প্রখ্যাত এই রেড লাইট ডিস্ট্রিক্ট সংক্ষেপে আরএলডি এখনো প্রতি বছর হাজার হাজার পর্যটকের জন্য প্রধান আকর্ষণের জায়গা।

একটি ছোট্ট খাল দিয়ে আলাদা করা জায়গাটিতে কর্তৃপক্ষ পতিতা পল্লীর জানালায় পতিতাদের প্রকাশ্য দেহ প্রদর্শনীর ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন। গত কয়েক বছরে সেখানে এরকম ৫০০টি জানালার মধ্যে ১৫০টি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এসব বাড়িগুলোতে স্থাপন করা হয়েছে আর্ট গ্যালারী, রেস্তোরাঁ।সেইসব জানালায় ঝোলানো হয়েছে বিভিন্ন শিল্পীদের আঁকা চিত্রকর্ম।পাশাপাশি ওই এলাকার আশপাশে ‘কফিশপ’ নামে পরিচিত গাঁজার বৈধ দোকানগুলোও বন্ধ করে দিতে শুরু করেছে সেখানকার পৌরসভা। ৭৬টি কফিশপের মধ্যে ২৪টির দরজা ইতিমধ্যেই বন্ধ হয়ে গেছে। বন্ধ হওয়ার পথে আছে আরো অনেকগুলো।

বিখ্যাত জানালা

প্রতিবাদে পথে নেমে এসেছেন সেখানকার পতিতারা। তাদের বক্তব্য হচ্ছে এই উচ্ছেদ অভিযান তাদের কাজের জায়গাকে অনিরাপদ করে দিচ্ছে। তাই কিছুদিন আগে ওই শহরে পতিতাদের একটি মিছিলও বের হয়েছে। সেই মিছিলের শ্লোগান ছিল ‘আমাদের নয়, আমাদের জানালা নিরাপদ করতে হবে।’

অ্যামস্টাডার্মে পতিতাবৃত্তির আইনী বৈধতা আছে।পুলিশের হিসেবের খাতা বলছে সেখানে ৫ হাজার থেকে ৮ হাজার পতিতা কাজ করে। কিন্তু শহরের আইনশৃংখলা পরিস্থিতি এবং মাদকদ্রব্যের বেড়ে যাওয়া ব্যবসা বন্ধ করতেই কর্তৃপক্ষ ১০ বছর মেয়াদী এই পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। তারা মনে করছে, এই ব্যবসার হাত ধরে নেদারল্যান্ডে রুশ ও বুলগেরিয়ান মাফিয়াদের অপরাধ সিন্ডিকেটগুলো ব্যাপক প্রভাব বিস্তার করতে শুরু করেছে।

বদলে যাচ্ছে উইন্ডো

মধ্যযুগ থেকেই নেদারল্যান্ডে এই পতিতাবৃত্তির ব্যবসা বিকশিত হতে শুরু করে। কিন্তু তখনও খোলামেলা পতিতাবৃত্তির ওপর শাসকদের পক্ষ থেকে নিষেধাজ্ঞা ছিলো। মূলত উনবিংশ শতাব্দী থেকে অ্যামস্টাডার্মের এই আরএলডি সারা পৃথিবরি মানুষের কাছে আকর্ষণের জায়গা হয়ে উঠতে থাকে।এই শহরে মূলত তিনটি রেড লাইট এরিয়া আছে।এঙ্গল নদীর ধারে সিঙ্গেলগেবাইড, রুসডেলিকেডি ও দে পিজিপ। এ সব এলাকায় ছোট ছোট বাড়িগুলোর প্রধান বৈশিষ্ট হচ্ছে আলোকিত জানালাগুলো। দিনে অথবা রাতে নানা বর্ণের আলো জ্বেলে রাখা এসব জানালায় দাঁড়িয়ে থেকে মেয়েরা খদ্দেরকে আকর্ষণ করে। অ্যামস্টার্ডামের এসব এলাকার ‘উইন্ডো’ তাই নামেই বিখ্যাত। হাজার হাজার পর্যটক এসব এলাকায় ভীড় জমালেই শহরের নিয়মকানুন বেশ কড়া। কারণ জায়গাগুলো খুব নিরাপদ নয়। নারী অপহরণ থেকে শুরু করে পকেট কাটার কারবার দেদার চলতে থাকে সেখানে।

তবে এই রেড লাইট ডিস্ট্রিক্টে মেয়েদের ছবি তোলা একেবারেই বারণ। কেউ শখ করে ছবি তুলতে গেলে ভাড়া করা পাহারাদারদের হাতে নাজেহাল হতে হয়। তারা হাতের ক্যামেরাটিও ভেঙ্গে দেয়।

জাহিদ রহমান

তথ্যসূত্র ও ছবিঃ  সিএনএন ট্র্যাভেল, ডেইলি মেইল

 

প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন amar@pranerbangla.com