ফারহানা নিশো যা বললেন

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

‘আমি জানি না কী কারণে আমাকে চাকরি থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। এই নাইমের সঙ্গে কাজের সূত্রেই আমার পরিচয়। গত কয়েক বছর ধরে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্টের কাজের ব্যাপারে তার সঙ্গে আমার পরিচয়।এবং সে সূত্র ধরেই সে আমার কাছে আসতো। তখনই সে কয়েকবার আমার সঙ্গে ছবি তোলে। সে অবশ্যই মারাত্নক এক অপরাধের সঙ্গে জড়িত হয়েছে। দেশের প্রচলিত আইন তার সাজার ব্যবস্থাও করবে। কিন্তু তার সঙ্গে জড়িয়ে আমাকে কেন দোষারোপ করা হবে? আমি কষ্ট পেয়েছি।’

গতরাতে প্রাণের বাংলার সঙ্গে এই আলোচিত ঘটনার ব্যাপারে কথা বলতে গিয়ে একটি বেসরকারী টেলিভিশন চ্যানেল একুশে টেলিভিশন থেকে সদ্য অব্যাহতি পাওয়া অনুষ্ঠান প্রধান ফারহানা শবনম নিশো এসব কথা বলেন।

গতকাল দেশের বেশ কয়েকটি অনলাইন নিউজ পোর্টালে ফারহানা নিশোর চাকরি থেকে অব্যাহতি পাওয়ার খবরটি প্রকাশিত হয়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও বিষয়টি নিয়েও দিনভর  আলোচনা চলে।

নিশো বলেন, ‘কোন আলোচনা না করেই এরকম একটি চিঠি  দেয়া হয়েছে।এবং চিঠিটি এখনও আমার হাতে পৌছেনি অথচ মিডিয়া কাছে চলে গেছে। বিষয়টি আমার জন্য অপমানজনক। এবং অন্য কারো চাকরি গেলে তো এভাবে ফলাও করে খবর প্রকাশিত হয় না।তাহলে আমার বেলাতে তা কেন হচ্ছে?’ তিনি আরো বলেন, একুশে টেলিভিশনের উন্নতির জন্য আমি সর্বোচ্চ নিষ্ঠা ও সততার সঙ্গে কাজ করেছি এবং আমি সফলও হয়েছি।তাহলে কেন এমন হলো জানি না’। নিশো তাকে কর্মরত অবস্থায় সহায়তা করার জন্য সকল অভিনেতা-অভিনেত্রী ও কলাকুশলীদেরও ধন্যবাদ জানান।

এদিকে ঢাকার অভিজাত এলাকা বনানীর ‘রেইন ট্রি’ হোটেলে ধর্ষণের ঘটনায় অন্যতম অভিযুক্ত নাইম আশরাফকে গতকাল রাতে মুন্সীগঞ্জ থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশের বিশেষ একটি টিম। এই নাইম আশরাফের সঙ্গে ফারহানা নিশোর কয়েকটি ছবি গত কয়েকদিনে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে শুরু হয় আলোচনা।

১৭ মে টেলিভিশন কোম্পানীর সচিব ও মানব সম্পদ বিভাগের প্রধান মোহাম্মদ আতিকুর রহমান স্বাক্ষরিত এক এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ফারহানা নিশোকে চাকরি থেকে অব্যাহতি দেয়ার তথ্যটি জানানো হয়। তবে কী কারণে তাকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে তার কোন ব্যাখ্যা দেন নি তিনি।

টেলিভিশন মিডিয়ায় পরিচিত মুখ ফারহানা নিশো সংবাদ উপস্থাপিকা হিসেবে  বেসরকারী টিভি চ্যানেল এনটিভিতে কাজ শুরু করেন। পরে তিনি চ্যানেল ওয়ান ও বৈশাখী টেলিভিশনের কর্পোরেট অ্যাফেয়ার্স বিভাগ হিসেবে কাজ করেন। ২০১৫ সালে তিনি একুশে টিভির অনুষ্ঠান বিভাগের প্রধান হিসেবে যোগ দেন।

 প্রাণের বাংলা প্রতিবেদক 

 

 

 

 

 

প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন amar@pranerbangla.com