পৃথিবীর অষ্টম মহাদেশর কথা

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শুনতে অদ্ভুত ঠেকলেও নতুন একটি মহাদেশের সন্ধান পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা। এই অষ্টম মহাদেশটির নাম হতে পারে জিল্যান্ডিয়া।দক্ষিণ-পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরের নিচে নতুন একটি মহাদেশের সন্ধান পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা। নতুন এ মহাদেশটি আয়তনে প্রায় ভারতীয় উপমহাদেশের সমান। তবে এই মহাদেশের প্রায় ৯৪ শতাংশই তলিয়ে আছে সাগরের পানিতে। নিউজিল্যান্ড এই মহাদেশটির একমাত্র জেগে থাকা অংশ। বিজ্ঞানীরা বলছেন, জিল্যান্ডিয়া দক্ষিণ-পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরের পানিতে তলিয়ে রয়েছে। তাই এই মহাদেশের নাম দেওয়া হয়েছে নিউজিল্যান্ড ও ইন্ডিয়া দুই দেশ মিলিয়ে। গবেষকরা ব্যাখ্যা করে বলেন, জিল্যান্ডিয়া ৫০ লাখ বর্গ কিলোমিটার এলাকা নিয়ে গঠিত, যা অস্ট্রেলিয়া মহাদেশের দুই-তৃতীয়াংশ হবে। এর ৯৪ শতাংশ পানির নিচে থাকলেও কিছু দ্বীপ এবং তিনটি ভূখণ্ড পানির ওপরে রয়েছে- এগুলো হলো নিউজিল্যান্ডের উত্তর ও দক্ষিণের দ্বীপগুলো ও নিউ ক্যালেডোনিয়া। সমুদ্র তলদেশ থেকে প্রায় ১২,২১৭ ফিট উচ্চতায় এটি সগৌরবে অবস্থান করছে।
বিজ্ঞানীরা দাবি করেন, মহাদেশের স্বীকৃতি পেতে যা যা দরকার, জিল্যান্ডিয়া তার সবকটিই পূরণ করেছে। এখানে উচ্চ ভূমি, স্বতন্ত্র ভূতত্ত্ব, সীমানা এবং সমুদ্রের তলদেশ গতানুগতিকতার চেয়ে বেশি ঘন। নিউজিল্যান্ডের ভূতত্ত্ববিদ নিক মরটিমার বলেন, জিল্যান্ডিয়া নিয়ে বিজ্ঞানীরা দুই দশকের বেশি সময় নিয়ে গবেষণা করেছেন। গবেষকরা বলেন, একটি মহাদেশ হতে যা দরকার তার চেয়ে বেশি বৈজ্ঞানিক গুরুত্ব রয়েছে এই জিল্যান্ডিয়ার। তবে এখন কেউ নেই যারা এটিকে মর্যাদা দিবে। যদি ভবিষ্যত্ গবেষণায় এটিকে মহাদেশ হিসেবে স্বীকার করা হয়, তবে মহাদেশ সাতটি নয় বলতে হবে ৮টি। এখন তাঁরা চেষ্টা করছেন নব আবিষ্কৃত তলিয়ে যাওয়া ভূখণ্ডের জন্য মহাদেশের স্বীকৃতি আদায়ের।
উল্লেখ্য, ২০০৭-এ প্রকাশিত হওয়া ‘ইন সার্চ অফ এন্সিয়েন্ট নিউজিল্যান্ড’ শীর্ষক বইয়ে নতুন এই মহাদেশের সম্ভাবনার কথা তুলে ধরেছিলেন বইটির লেখক তথা গবেষণায় অংশগ্রহণকারী হামিশ ক্যাম্পবেল। তিনি জানান, আগে পুরো জিল্যান্ডিয়া মহাদেশটাই জলের তলায় ছিল, কিন্তু পরবর্তীকালে ‘প্লেট মুভমেন্ট’-এর ফলে জলের ওপরে উঠে আসে নিউজিল্যান্ড।

ছবি ও তথ্যঃ ইন্টারনেট।

প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন amar@pranerbangla.com