পিরামিড রহস্যের সমাধান

  •  
  •  
  •  
  •  
  • 0
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

রহস্যে ঘেরা পিরামিড। মিশরের মরুভূমিতে মাথা তুলে দাঁড়িয়ে আছে অসংখ্য প্রশ্ন নিয়ে। কিভাবে তৈরী হয়েছিল ৪৫৫ ফুট উঁচু পাথরের তৈরী পিরামিড? এতো ভারী ভারী পাথরই বা কিভাবে বয়ে আনা হলো? এসব প্রশ্ন নিয়ে পৃথিবীর মানুষের মাথা ঘামানোর অন্ত নেই। তবে এবার বোধ হয় পিরামিড তৈরীর রহস্য আবিষ্কার করে ফেলেছেন প্রত্নতত্ত্ববিদরা।

সম্প্রতি গবেষণার সূত্র ধরে তারা বলছেন, সম্ভবত সে যুগের মিশরীয়রা গিজার পিরামিড তৈরী করতে বানিয়েছিল নৌকা। এই নৌকায় করেই আনা হয়েছিল ১ লক্ষ ৭০ হাজার পাথর। তাদের এই তথ্য এবার নতুন করে আলো ফেলবে প্রায় চার হাজার বছর আগে তৈরী করা সম্রাট কফুর সমাধিস্থল নির্মাণের রহস্যের উপর।

গবেষকরা বলছেন প্রায় ৫০০ মাইল দূর থেকে এই পাথর বয়ে আনা হয়েছিল পিরামিড তৈরীর জায়গায়। তারা গিজার এই পিরামিডে খনন কাজ চালিয়ে আবিষ্কার করেছেন নৌকার ধংসাবশেষ আর পানি পথের চিহ্ন।

পিয়েরে তালি নামে এক প্রত্নতাত্ত্বিক চার বছর ধরে গবেষণা চালিয়ে আবিষ্কার করেছেন এসব নিদর্শন। সঙ্গে তিনি পেয়ে গেছেন পৃথিবীর সবচেয়ে পুরনো প্যাপিরাস কাগজে লেখা বিবরণ। লেখাটি লিখেছিলেন মেরার নামে এক ব্যক্তি যে সেই সময়ে ৪০ জন অভিজ্ঞ নাবিকের একটি দলের নেতা ছিল। তালির দাবি এই নাবিক দল নৌকা বানানো এবং নীল নদ থেকে খাল তৈরী করে পিরামিডের নির্মাণস্থল পরযন্ত নিয়ে আসার কাজটি করেছিল।তাতে করে একটি বিষয় পরিস্কার হয়ে যায় যে পাথর এসেছিল নৌকায়। এসব নৌকারে কাঠামো শক্ত করে আটকে রাখার জন্য মোটা দড়িও ব্যবহার করা হয়েছিল। এই দড়ির কিছু অংশও তারা পেয়ে গেছেন খনন কাজ চালানোর সময়। গবেষকরা অনুমান করছেন প্রায় আড়াই লক্ষ পাথরের ব্লক সেসময় হাজার হাজার শ্রমিক নৌকায় করে বয়ে নিয়ে এসেছিল পিরামিড তৈরীর জায়গায়।

প্রাণের বাংলা ডেস্ক

তথ্যসূত্র ও ছবিঃ ইন্ডিপেনডেন্ট নিউজ

প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন amar@pranerbangla.com