তাহাদের গোপন ছবিটি…

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিষম বিপদ ঘটছে সিনেমা পর্দার রাজকন্যাদের। তাদের গোপন কথাটি আর গোপনে থাকছে না। রূপকথার গল্পের সেই সিন্ডেরেলার জুতো ফেলে যাওয়ারে গল্পের মতো অনেকটা। এবার ইন্টারনেটের খোলা পর্দায় তাদের উদোম শরীর,  গোপন ভঙ্গীর উত্তাপ ছড়ানো উন্মোচন বের হয়ে আসছে একেবারে আম জনতার মজলিসে। ঘটনা বিষম বিপদ ছাড়া আর কী?
গেল এক সপ্তাহে হলিউডের প্রায় অর্ধ ডজন হাই-ভোল্টেজ অভিনেত্রীর মোবাইল ফোনে তোলা গোপন নগ্ন ছবি প্রকাশিত হয়েছে ইন্টারনেটে। হ্যাকাররা ভয়ঙ্কর অাক্রমণ চালিয়ে তাদের সবার পর্দা ফাঁস করে দিয়েছে। এ নিয়ে পশ্চিমা দুনিয়ায় চলছে তোলপাড়।
অস্কার জয়ী এমা ওয়াটসন থেকে শুরু করে শ্যারলট ফেয়ার, কিম কারদেশিয়ান,জেনিফার লরেন্স সবাই আছেন এই তালিকায়। তারা প্রত্যেকেই কোন না কোন অসতর্ক মুহূর্তে বাথরুম অথবা বয় ফ্রেন্ডের সঙ্গে বিছানায় দুঃসাহসী কিছু ছবি তুলেছিলেন। আর জমিয়ে রেখেছিলেন সেই ছবি মোবাইলে। ব্যাস, আর যায় কোথায়? হ্যাকার বাহাদুররা ঠিক আলো ফেলে ফেলে পৌঁছে গেছে সেই গোপনতম স্থানে। ছবি চলে এসেছে তাদের হাতে।
অভিনেত্রীদের মধ্যে যারা আই ফোন ব্যবহার করেন তারাই বেশী বিপদে পড়েছেন। একে বলা হচ্ছে আই ক্লাউড হ্যাকিং। এই বিপদে আছেন কিম আর জেনিফার লরেন্স। ছবির পর্দা ফাঁস হয়ে যাওয়ায় বেশ চটেমটে উকিল আর আদালতের আশ্রয় নিয়েছেন এমা। সাইবার আইনে মামলা ঠুকে দিয়েছেন হ্যাকারদের বিরুদ্ধে। কিন্তু তারা তো এতোক্ষণে পগারপার।
এই  নগ্ন ছবি ফাঁসের ঘটনায় কিন্তু ভিন্ন এক প্রশ্নও সামনে এসে দাঁড়িয়েছে। এখনকার নায়িকারা এরকম ছবি তুলছেন কেন? তাদের নিজেদের মোবাইলে এ ধরণের ছবি কেন এতো স্থান পাচ্ছে?
সমালোচকরা বলছেন, তারা নিজেদের অভিনয় ক্ষমতার উপর আস্থা রাখতে পারছেন না। আর সেজন্যই এরকম ছবি তুলে চমকে দিতে চাইছেন দুনিয়াকে।
এই কিছুদিন আগে হলিউডের আলোচিত অভিনেত্রী হ্যাল বেরী কান পুরস্কার জয় করার পর আনন্দে সুইমিংপুলের পাশে খুলে ফেলেছিলেন নিজের পোশাক। আর যায় কোথায়! ক্যামেরার ক্লিক ক্লিক, বেরীর ধাপে ধাপে এই উন্মোচন ছবি হয়ে চলে আসে নেট দুনিয়ায়। ওঠে ঝড়।
হলিউড থেকে এসব কান্ডকারখানায় পিছিয়ে নেই বলিউডও। তাদের বিভিন্ন হিন্দী সিরিয়াল আর সিনেমার নায়িকারা প্রথম সুযোগেই পোশাক উন্মোচন করে তুলতে চাইছেন ঝড়। সম্প্রতি সোশ্যাল সাইটে বিতর্কে জড়িয়েছেন  বাঙালি মডেল অনহিতা দাশগুপ্ত। সম্প্রতি একটি ম্যাগাজিনের আয়োজন করা এক প্রতিযোগিতার জন্য নগ্ন ফটোশুট করেন অনহিতা। শরীরে কাপড়ের লেশমাত্র না থাকায় তা নিয়ে বিতর্কের মুখে পড়তে হয়েছে অনহিতাকে। ছবিতে গয়না দিয়েই লজ্জা আবরণ করেছেন এই মডেল।সোশ্যাল সাইটে ছবিটি অশালীন বলে মন্তব্য করেন অনেকেই। তাঁর ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ভরে ওঠে নেগেটিভ কমেন্টে। প্রশ্ন ওঠে তাঁর ব্যক্তিগত জীবন, তাঁর রুচি নিয়েও। তবে শুধু মাত্র ফটোশুটের খাতিরেই নগ্ন হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। মডেল হিসাবে তিনি শুধুমাত্র তাঁর কাজ করেছেন এমনটাই দাবি অনহিতার।
ছোটপর্দায় গৃহিণীর চরিত্রে অভিনয় করে মন কেড়েছেন জনপ্রিয় এই অভিনেত্রী। ‘শক্তি’, ‘হিটলার দিদি’ ও ‘দিয়া আউর বাতি হম’-এর মতো একাধিক ভারতীয় জনপ্রিয় সিরিয়ালের মাধ্যমে পৌঁছে গিয়েছেন পরিচিতির শীর্ষে। তবে চিরপরিচিত সেই সাধারণ, নম্র ও সংসারী রুবিনা দিলাইক হঠাৎ হয়ে উঠলেন ‘বোল্ড’। চোখে না দেখলে বিশ্বাসই করা যাবে না যে প্রজাপতির মতো খোলস ছেড়ে অভিনব রূপে আত্মপ্রকাশ করেছেন ওই অভিনেত্রী।সম্প্রতি, প্রেমিকের সঙ্গে সমুদ্রের ধারে কয়েকটি ‘বোল্ড’ ছবি তোলেন রুবিনা। শুক্রবার, প্রেমিকের তোলা ওই ছবিগুলি ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করেন তিনি। প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই তোলপাড় শুরু হয় নেটদুনিয়ায়। একদিনেরও কম সময়ে প্রায় ৩৫ হাজারেরও বেশি লাইক পড়ে তাঁর ছবিগুলিতে। বয়ে যায় কমেন্টের বন্যা।
মনোবিজ্ঞানীরা এই মানসিকতার দিকগুলো নিয়ে ভাবছেন। তারা স্পষ্টই বলছেন মন জগতে পরিবর্তন ঘটেছে। অভিনয় অথবা ভালো কাজ করার চাইতে এখনকার অভিনেত্রী আর মডেলরা এক ঝটকায় ঝড় তুলে বাজার দখল করতে চাইছেন। ফলে তারা নিজেদের শরীরকেই লক্ষ্যভেদের অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করতে চাইছেন। তাতে করে বিনোদন জগত সাধারণ মানুষের দরবারে বিরূপ প্রতিক্রিয়া তৈরী করছে।

সাইফ খান
তথ্যসূত্র ও ছবিঃ দি সান

প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন amar@pranerbangla.com