টাইগারদের ঐতিহাসিক ব্যাটিং বিপর্যয়

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আহসান শামীমঃ বোলিং-ফিল্ডিংয়ে যতটা সময় নিয়েছিল বাংলাদেশ, তাতে শাস্তিটা প্রায় অবধারিতই ছিল। ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে সেটা নিশ্চিত করে দিলেন মাশরাফি বিন মুর্তজা নিজেই। তৃতীয় ওয়ানডেতে মন্থর ওভার রেটের কারণে এক ম্যাচ নিষিদ্ধ হয়েছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক।শনিবার তৃতীয় ওয়ানডেতে বাংলাদেশকে ৭০ রানে হারিয়ে ১-১-এ সিরিজ ড্র করে শ্রীলঙ্কা। ম্যাচ শেষে আইসিসির আনুষ্ঠানিক ঘোষণার আগে সিংহলিজ স্পোর্টস ক্লাব মাঠে সংবাদ সম্মেলনে মাশরাফি জানিয়ে দিলেন নিজের নিষেধাজ্ঞার খবর।“এক ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা পেলাম, পরের ওয়ানডে খেলতে পারবো না।”

অন্যদিকে শ্রীলঙ্কান জাতীয় ক্রিকেট দল ছিল  প্রবল সমালোচনার বেড়াজালে। সমর্থক, সাংবাদিকরা তো বটেই, বোর্ডও খুব চটে ছিলেন শ্রীলঙ্কান খেলোড়দের ওপরে। টানা পরাজয়ে ক্লান্ত দলটার অধিনায়ক উপল থারাঙ্গা বলছেন, তারা বুঝতে পারছেন এই পরিস্থিতিটা। বাংলাদেশও এক সময় এমন পরিস্থিতিতে ছিলো বলে থারাঙ্গা বলছেন, তারা বাংলাদেশের মতোই ঘুরে দাঁড়াতে চান। আজ বাংলাদেশ বিপক্ষে ৭০ রানের জয় দিয়ে সত্যি ঘুরে দাড়িয়েছে শ্রীলংকা।

মাশরাফি বিন মুর্তজার টস ভাগ্য খুব একটা তার হয়ে কথা বলে না। কলম্বোর এসএসসিতে ওয়ানডে সিরিজের শেষ ম্যাচে টস মাশরাফির সহায় দিল। গত দুই দিন বৃষ্টি হওয়ায় শুরুর দিকে সুইং পাওয়ার আশায় শুরুতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন তিনি। ব্যাট হাতে প্রথম দশ এভারে যাচ্ছেতাই ভাবেই বাংলাদেশের বোলাদের বল তছনছ করে দেয় শ্রীলংকান ব্যাটসম্যানরা । যদিও পরে টাইগার বোলারা খেলায় কতৃত্ব ফিরে পান যে কারনে ২৮০ রানের বেশী করতে ব্যার্থ হল। জয়ের জন্য এমন উইকেটে টার্গেটা খুব বেশী ছিল না । বাংলাদেশের হেড কোচ হাতুরাসিংহ টাইগার দলের কাছে খেলার আগেই চেয়েছিলেন দলের কোন খেলোয়াড় শেষ পর্যন্ত উইকেটে টিকে থাকুক । এমন চাওয়া প্রথম চার ওভারেই শেষ । তামিম, সাব্বির , মুশফিক আউট।  সৌম্য আর সাকিব দলের হার ধরলেও শেষ পর্যন্ত ইনিংসটা জয়ের শেষ প্রান্ত অবাধি টেনে নিতে পারলেন না । বলা যায়  টাইগারদের ঐতিহাসিক ব্যাটিং ব্যার্থতায় শ্রীলংকার বিপক্ষে সিরিজ জয়ে ইতিহাস গড়েতে ব্যার্থ হয়েছে । যদিও সিরিজ ১-১ সমতা ।

ম্যাচ শেষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে এসে বাংলাদেশের অধিনায়ক মাশরাফি বলেন, ‘২৮০ লক্ষ্য তাড়া করা এই পিচে অবশ্যই সম্ভব।’প্রথম ১০ ওভারে বল শ্রীলঙ্কার কোন উইকেট নিতে পারেনি বাংলাদেশ। ফলে উড়ন্ত সূচনা পায় দলটা। অন্যদিকে ২৮১ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ৪ ওভারের ভেতরেই ৩ উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকে ছিটকে পড়ে বাংলাদেশ। মাশরাফিও মনে করেন প্রথম দশ ওভারই ম্যাচের ভাগ্য গড়ে দিয়েছে।‘আমরা প্রথম দশ ওভারেই ম্যাচ হেরে গিয়েছি। আজকের ম্যাচের জন্য আমাদের উপর কোন চাপ ছিল না।’

ওডিআইতে ২৮১ রানের লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই বাউন্ডারির দেখা পান তামিম। কিপার ও স্লিপের ফাঁক গলে চার হয়।   নুয়ান কুলাসেকেরার ওভারের শেষ বলটা তামিম ক্যাচ দিলেও তা ঠিক মতো ধরেও নিজের আয়ত্বে রাখতে পারেননি লঙ্কান পেসার।  মাঠের দুই আম্পায়ার অবশ্য তৃতীয় আম্পায়ার সুন্দরম রবির কাছে আবেদন জানান। রিপ্লেতে দেখা যায় কুলাসেকেরার ধরা বলটা উদযাপনের আগেই হাত ফসকে পড়ে যায়।  তবে টিভি আম্পায়ার রবি আউট বিবেচনাতে নেন।  যা স্বাভাবিকভাবে মেনে নিতে পারেননি তামিম। শুধু তামিম কেন মেনে নিতে পারেননি টাইগার সমর্থকরাও ।

তামিমের ক্যাচের মুহূর্তটা মনে করিয়ে দেয় আজ থেকে ১৮ বছর আগের বিশ্বকাপে দক্ষিণ আফ্রিকা বনাম অস্ট্রেলিয়ার গ্রুপ পর্বের ম্যাচকে। ১৯৯৯ বিশ্ব আসরে হেডেংলির লিডসে অনুষ্ঠিত সেই ম্যাচে তখনকার অজি অধিনায়ক স্টিভ ওয়াহ’র ক্যাচ নিয়েছিলেন প্রোটিয়া তারকা হার্শেল গিবস।  তবে ঠিক একইভাবে তার হাত থেকেও বলটা ফসকে যায়।  আর আম্পায়ারও সেটা  আউট বিবেচনায় নেননি।২৭২ রানের টার্গেটে ব্যাটিংয়ে নামা অজিদের সেই উইকেটটি পড়লে হয়তো দক্ষিন আফ্রিকার জয় হতেও পারতো।  কারন সেই ক্যাচের সময় ওয়াহ মাত্রই হাফসেঞ্চুরি করেছিলেন।  আর শেষ পর্যন্ত ১২০ রানে অপরাজিত থেকে দলকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন।

তৃতীয় আম্পায়ারে রিপ্লেতে তামিমের আউটা না হলে হয়তো বাংলাদেশ আজ লঙ্কানদের বিপক্ষে ঐতিহাসিক জয়টা তুলে নিতেও পারতো ।বাংলাদেশের অধিনায়ক অবশ্য তামিমের আউট নিয়ে কোন মন্তব্য করলেন না । আঙ্গুল পাঁচ ব্যাটসম্যানদের দিকে  তামিমের ৪, সাব্বিরের ০, মুশফিকের ০, মোসাদ্দেকের ৯ ও মাহমুদুল্লাহর ৭ রানের জন্য মূলত আজ শ্রীলংকার কাছে বাংলাদেশে হেরেছে। শ্রীলংকার ব্যাটিং এর সময় প্রথম দশ ওভারে বোলারা সঠিক দ্বায়িত্ব  পালন করতে পারলে শ্রীলংকার রানের চাকাটাও টেনে ধরা যেত ।

ছবিঃ ইএসপিএন

 

প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন amar@pranerbangla.com