চ্যাম্পিয়নস ট্রফি থেকে সরে দাঁড়াতে পরে ভারত

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আহসান শামীমঃ ভারতীয় গণমাধ্যম স্পোর্টসকিডা এক পরিসংখ্যান দেখিয়ে বলেছে, চ্যাম্পিয়নস ট্রফি থেকে ভারত নিজেদের নাম তুলে নিলে প্রত্যাশিত আয়ের অর্ধেকও আয় করতে পারবে না আইসিসি। সম্প্রতি দুবাইতে আইসিসির চূড়ান্ত সভায় আর্থিক বন্টন নীতি প্রস্তবানায় ভারত ৯-১ ভোটে হেরে যায়। নির্ধারিত সময় পার হয়ে গেলেও চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে ভারত তাঁর দলের নাম জমা দেয়নি আইসিসির কাছে । ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড আইপিএলের কারনে ৭ দিনের সময় চেয়েছে বলে গনমাধ্যমের খবর।

দুবাইয়ে আইসিসির সভায় গৃহীত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, আট বছরের রাজস্ব মডেলে ভারত পাবে সর্বোচ্চ ২৯৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। বিগ থ্রি মডেল অনুযায়ী, ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ড (বিসিসিআই) পেতো ৫৭০ মিলিয়ন ডলার। সেটা প্রায় অর্ধেক কমে গেছে। নতুন রাজস্ব মডেলে বাংলাদেশের আয় বেড়েছে। আইসিসির কাছ থেকে বাংলাদেশ পাবে ১৩২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার (আনুমানিক ১ হাজার ৫০ কোটি টাকা)। অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, শ্রীলঙ্কা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজও সমপরিমাণ অর্থ পাবে। জিম্বাবুয়ে পাবে কিছুটা কম, ৯৪ মিলিয়ন ডলার। ইংল্যান্ড ও ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড’র (ইসিবি) ঘরে যাবে ১৪৩ মিলিয়ন ডলার।অন্যদিকে আইসিসির সহযোগী দেশগুলোকে সম্মিলিতভাবে পাবে ২৮০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। ২০১৬ থেকে ২০২৩ সাল পর্যন্ত দেশগুলোকে এই অর্থ দেবে আইসিসি।

ভারত চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে অংশ না নিলেও চ্যাম্পিয়নস ট্রফি আয়োজন করবে আইসিসি। আর সবগুলো দলই অংশগ্রহণ করবে, জানিয়েছেন পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি শাহরিয়ার খান।ডন পত্রিকাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে শাহরিয়ার খান বলেছেন, ‘আইসিসির বোর্ড সভায় বড় ব্যবধানে ভোটাভুটিতে হারার পর ভারত চ্যাম্পিয়নস ট্রফি থেকে নিজেদের সরিয়ে নেওয়ার ইঙ্গিত দেয়। একটি বিষয় আমি স্পষ্ট করে বলি, ভারত যদি চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে অংশ নাও নেয় ভারতকে ছাড়াই প্রায় সবগুলো দলই চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে খেলবে। যদি ভারত না খেলে ওয়েস্ট ইন্ডিজ কিংবা অন্য কোনো দলকে চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে যুক্ত করতে পারে আইসিসি।’ শাহরিয়ার খান স্বীকার করেন চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে ভারত না খেললে আইসিসির আর্থিক ক্ষতির কথাটা ।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বিশ্বাস করেন চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে ভারত ৭ মে’র মধ্যেই নাম পাঠাবে । সেটা না হলে ভারতকে আইসিসির নিয়মে আর্থ দন্ড দিতে হতে পারে । আর্থিক বন্টন নীতি নিয়ে বিসিবি সভাপতি বলেন , আমরা বেশী অর্থ পাই সেখানে ভারতের আপত্তি নেই । তাঁরা বিকল্প  প্রস্তাবনা  আইসিসির কাছে জমা দিতো পারে ।

 

প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন amar@pranerbangla.com