চলে গেলেন মিজু আহমেদ

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

চলে গেলেন বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের শক্তিমান খল অভিনেতা মিজু আহমেদ। মাত্র ৬২ বছর বছর বয়েসেই পৃথিবীকে বিদায় জানালেন এই অভিনেতা। আজ সোমবার সন্ধ্যায় হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে তিনি মারা যান (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

আজ সন্ধ্যায় ট্রেনে দিনাজপুরের স্বপ্নপুরীতে যাওয়ার উদ্দেশ্যে রওনা িহয়েছিলেন মিজু আহমেদ। কিন্তু ঢাকা বিমানবন্দর স্টেশনের কাছেই হৃদযন্ত্রের অসুস্থতায় আক্রান্ত হন তিনি।

অমিত হাসান জানান, বিমানবন্দর থানা থেকে তাকেত খবরটা জানানো হয়েছে। সেখান থেকেই তাকে এই অভিনেতার  মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করা হয়েছে। জানা গেছে, ট্রেনেই মিজু আহমেদ হার্ট অ্যাটাক হয়।  এসময় ট্রেনে কর্তব্যরত চিকিৎসক তার পালস পরীক্ষা করে তার হার্টবিট পান নি।

মিজু আহমেদের জন্ম ১৯৫৩ সালের ১৭ নভেম্বর কুষ্টিয়ায়। স্ত্রী পারভীন আহমেদ, দুই মেয়ে কেয়া ও মৌ এবং ছেলে হারশাতকে নিয়ে ছিল তার পরিবার।

১৯৭৮ সালে কৃষ্ণা ছবির মাধ্যমে বাংলাদেশের চলচ্চিত্রে যাত্রা শুরু করেন মিজু আহমেদ। এ পর্যন্ত ৮০০ এর বেশী ছবিতে অভিনয় করেছেন। তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য ছবির তালিকায় রয়েছে তৃষ্ণা, চাকর, ত্যাগ, বশিরা, হাঙর নদী গ্রেনেড, কুলি, লাঠি, কষ্ট, ইতিহাস ও ক্রাইম রোড। তৃষ্ণা ছবিতে অভিনয়ের জন্য তিনি সেরা পার্শ্ব অভিনেতা হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন।

মিজু আহমেদের মৃত্যুতে শোক জানিয়েছে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্প সমিতি, বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতি, বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রযোজক ও পরিবেশক সমিতি, বাংলাদেশ হল মালিক ও প্রদর্শন সমিতিসহ চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান তার মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন।

বিনোদন ডেস্ক

 

প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন amar@pranerbangla.com