ইংল্যান্ডে হামলার শিকার তামিম পরিবার

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আহসান শামীমঃ পরিবার সহ এসেক্সে খেলতে গিয়ে সন্ত্রাসী হামলার মুখে পড়ে দেশে ফিরে এসেছেন ওপেনার তামিম ইকবাল খান। গতকাল রাত থেকেই কিছু সংবাদ মাধ্যমের এমন খবরে তোলপাড় শুরু হয়েছে গোটা দেশে। শুধু দেশেই না বিশ্ব ক্রিকেটে মিডিয়ায়ও এই খবরটি আলোড়ন তৈরী করে। গত বুধবার দেশে ফিরে এই নিয়ে গনমাধ্যমকর্মীদের কাছে মুখ খোলেননি তামিম। তামিম ইকবাল খবরের সত্যতা অস্বীকার করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের সত্যায়িত পাতায় জানিয়েছেন,‘আমি আমার সকল ভক্ত সমর্থকদের জানাতে চাই যে, আমি এসেক্সের সাথে অল্প সময় থেকে দেশে ফিরছি সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত কারনে। কিছু মিডিয়া রিপোর্ট করেছে যে, আমরা সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয়েছি। এমন খবরের কোন সত্যতা নেই।’

ইংল্যান্ডের শীর্ষ পর্যায়ের পত্রিকা দ্যা ইন্ডিপেন্ড অবশ্য স্বীকার করছেন তামিম ও তার পরিবারের ওপর এসিড হামলার চেষ্টা হয়েছে । পাশাপাশি তারা দাবী করছেন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করতে তামিমের সঙ্গে কথা বলছে।

অন্যদিকে  ভক্ত সমর্থকদের আলাদা করে তামিমের ব্যক্তিগত গোপনীয়তাকে সম্মান করতে বলেছে এসেক্স কাউন্টি ক্লাব। একান্ত ব্যক্তিগত ব্যাপার বলে তামিম ইকবাল নিজেও এই ইস্যুতে মুখ খুলতে চাননি।

দেশের শীর্ষস্থানীয় এক ইংরেজি দৈনিক ডেইলি স্টার প্রতিবেদন থেকে জানা যায় যে, তামিম ইকবালের স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকাকে লক্ষ্য করে দুষ্কৃতিকারীরা এসিড নিক্ষেপের চেস্টা করে। হিজাব পরিহিত অবস্থায় থাকা তামিমের স্ত্রীর সাথে এহেন ঘটনা কোথায় ও কখন ঘটেছে এই খবর পাওয়া যায় নি।

অন্যদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক বোর্ড পরিচালক প্রথম আলোকে বলেছেন, “তামিম ও তার পরিবারকে ধাওয়া করেছিল কয়েকজন লোক। দৌড়ে নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যাওয়ায় তাদের কিছু হয়নি। এ ঘটনার পরই তামিম দেশে চলে আসার সিদ্ধান্ত নেয়।” তামিমের স্ত্রী মাথায় হিজাব পরেন বিধায় হামলার টার্গেটে পরিনত হয়েছে তামিম পরিবার। এছাড়া ইংল্যান্ডে মুসলিমদের লক্ষ্য করে এসিড নিক্ষেপের মত জঘন্য ঘটনা সাম্প্রতিক সময়ে ঘটেছে। কিছু দিন আগেই একই পরিবারের দুই মুসলিম মেয়ের উপর এসিড নিক্ষেপ করা হয়।

তামিম ইকবাল জানান , “ক্রিকেট খেলার জন্য ইংল্যান্ড আমার পছন্দের স্থানগুলোর একটা। আর এসেক্স কাউন্টি আমার প্রতি যথেষ্ট অনুগ্রহশীল ছিল যদিও আমাকে আগেই দেশে ফিরতে হচ্ছে। আমি আমার সকল সমর্থকদের ধন্যবাদ জানাচ্ছি। আর আমি সামনের সময়টাতে ইংল্যান্ডে ম্যাচ খেলতে যাওয়ার অপেক্ষায় থাকবো।”

অবশ্য প্রকৃত ঘটনা সম্পর্কে তামিমের মুখ বন্ধ থাকায় গুঞ্জন ডালপালা বিস্তার করছে । তামিম কেন হঠাৎ ইংল্যান্ড ছাড়লেন সেটা পরিস্কার হতে আরও কিছুদিন সময় লাগবে । যদিও ইংলিশ গনমাধ্যম তামিমের পরিবারের ওপর এসিড হামলার প্রচেষ্টা হয়েছে এবিষয় নিশ্চিত ।

ছবিঃ গুগল

 

প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন amar@pranerbangla.com