আশা জাগানিয়া ম্যাচ

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আহসান শামীমঃ পরিসংখ্যান আশা জোগাচ্ছে, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে আজ জিতবে টাইগাররা ৩২৫ রান তাড়া করতে নেমে টাইগার অধিনায়ক মাশরাফির  প্রথম ওভারের তৃতীয় বলেই লঙ্কান ওপেনার দানুস্কা গুনাঠিকালাকে এল বি ডব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলেন টাইগার অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। এরই সাথে প্রথম ব্রেক থ্রু এনে দেন তিনি। ষষ্ট ওভারে মিরাজের বলে আউট হন মেন্ডিস । শ্রীলংকা ৬ ওভারে ১৫ রানে দুই উইকেট হারায় ।

এর আগে টস জিতে বাংলাদেশকে ব্যাটিংয়ে পাঠান শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক উপুল থারাঙ্গা। টস হারার পর মাশরাফি বিন মুর্তজা জানান, টস জিতলে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্তই নিতেন তিনি। ব্যাট হাতে ডাম্বুলার রাঙ্গিনি ক্রিকেট স্টেডিয়াম মাঠে সর্বোচ্চ দলীয় রানের রেকর্ডটা নিজেদের করে নিয়েছে বাংলাদেশ। যেকোনো দেশের পক্ষে ডাম্বুলার স্টেডিয়ামে এটাই এখন সর্বোচ্চ স্কোর ৩২৪/৫ । ব্যাটিংয়ে নেমে থারাঙ্গার সিদ্ধান্তকে রীতিমত ভুল প্রমাণিত করেছেন বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানেরা।  টাইগার ওপেনার তামিম ইকবালের কাছে একেবারেই পাত্তা পাননি লঙ্কান বোলাররা।

থিসারা পেরেরা, সুরঙ্গা লাকমল, লাকসান সান্দাকানদের রীতিমত তুলোধুনো করেছেন তামিম। টাইগার ওপেনারের পাশাপাশি এদিন দুর্দান্ত ফর্মে ছিলেন হার্ডহিটার সাব্বির রহমান এবং সাকিব আল হাসান আর মোসাদ্দেক সৈকত ।

সাব্বির ৫৬ বলে ৫৪ এবং সাকিব ৭১ বলে ৭২ রান আর মোসাদ্দেক  সৈকত ৯ বলে ২৪* রানের ঝলমলে এক ইনিংস খেলেন ।তামিম তাঁর ওয়ানডে ক্যারিয়ারের অষ্টম সেঞ্চুরি , ১৪২ বলে ১২৭ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংস যার মধ্যে ছিলো ১ টা ছয় এবং ১৫ টা চার। তামিম ইকবাল বাংলাদেশে একমাত্র খেলোয়াড় যিনি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ৫১ তম ব্যাটসম্যান হিসাবে দশ হাজার রানের ক্লাবে পৌঁছান । শুধু তাই না , ডাম্বুলার উইকেটে তামিম ব্যাক্তিগত রানের রেকর্ড আর টাইগার দল দলীয় সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড গড়েছে । এর আগে শেষ দশ ম্যাচে ডাম্বুলার উইকেটে গড় রান ছিল ২০০। আর এই উইকেটে তিন’শ রান চেজ করে কোন দল জয়ের দেখা পায়নি । বাংলাদেশ ইনিংসের শেষ দশ ওভারে ১০৯ রান তোলে । ডাম্বুলার এ মাঠে কেউ ৩০০ করে হারেনি।  এ নিয়ে তৃতীয়বার এ মাঠে ৩০০-র স্কোর হলো।  তিনবারই জড়িয়ে থাকল বাংলাদেশের নাম।  আগের দুবার বাংলাদেশের বিপক্ষে পাকিস্তান করেছিল ৩৮৬, আর শ্রীলঙ্কা করেছিল ৩১২।  ওই দুবারই হেরেছিল বাংলাদেশ।

এর আগে আজ শনিবার দীর্ঘ অপেক্ষার পর  ওয়ানডে অভিষেক হয়  তরুণ অফ স্পিনিং অলরাউন্ডার মেহেদী হাসান মিরাজের। রনগিরি ডাম্বুলা আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে মিরাজের মাথায় টুপি পড়িয়ে দেন আরেক অফ স্পিনিং অলরাউন্ডার মাহমুদউল্লাহ। ১৯ বছর বয়সী মিরাজ বাংলাদেশের ১২৩তম ওয়ানডে ক্রিকেটার।

 

প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন amar@pranerbangla.com