আগামীকালের টার্গেট ওয়ার্নার ও স্মিথ

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আহসান মামীম: মুশফিকের দূর্ভ্যাগের আউট, ডেভিড ওয়ার্নারের সহজ ক্যাচ ড্রপ সৌম্যের, অজি অধিনায়ক স্মিথ কে রান স্ট্যাম্পিংয়ে ব্যার্থতা সব মিলিয়ে শেষ বিকেলে বাংলাদেশ শিবিরে হতাশা। এই হতাশার ছাপ সোশ্যাল নেটওয়ার্ক ফেসবুক জুড়েও। সবার আঙ্গুল হেড কোচ হাতুরাসিংহের দিকে। কারন একটাই দল গঠনে তিনি পক্ষপাতিত্ব করছেন। অবশ্য শুধু আজই না ,ঢাকা টেষ্টের শুরুতেই হেড কোচ হাতুড়াসিংহ মোটামুটি ভিলেনের আসনে বসে আছেন।

হতাশার মাঝেও অষ্ট্রেলীয়দের এশিয়া উপমহাদেশের রেকর্ড বুক কিছুটা সান্তনা দিতেই পারে। রেকর্ড বলছে এশিয়ায় অস্ট্রেলিয়া একবারই চতুর্থ ইনিংসে তিন শতাধিক রান তাড়া করে জিতেছিল। সেটাও বাংলাদেশের বিপক্ষে ২০০৬ সালে ফতুল্লা স্টেডিয়ামে। সেবার অস্ট্রেলিয়া জিতেছিল ৩০৭ রান তাড়া করে। বাংলাদেশের বর্তমান দলটা তখনকার চেয়ে ভিন্ন। শক্তি,সামর্থ্য,অভিজ্ঞতা সব দিক দিয়েও অনেক বেশি সমৃদ্ধ। এমনকি ঘরের মাঠে এখন অনেক শক্তিশালী দল বাংলাদেশ। অভিজ্ঞরা এখনই টাইগারদের  জয়ের ব্যাপারে হতাশ হতে রাজী নন। এজন্য চতুর্থ দিনে দ্রুত তুলে নিতে হবে ওয়ার্নার আর স্মিথের উইকেট।

বাংলাদেশের জন্য  আক্ষেপই হয়ে থাকল মুশফিকুর রহীমের রান আউট। তামিম আউট হওয়ার পর অধিনায়ক মুশফিক দারুন ভাবে বাংলাদেশকে পথ দেখাচ্ছিলেন।  এক ঝলকেই সব উলট পালট হয়ে যায়।  ব্যাটিং প্রান্তে তখন সাব্বির। নাথান লায়ন  তখন বোলিং  করার সময় ক্রিজ ছেড়ে কিছুটা বেড়িয়ে এসেছিলেন মুশফিকু।  আর সেটাই কাল হল তার।  সাব্বিরের শট সরাসরি চলে যায় লায়নের কাছে।  লায়নের হাত ছুয়ে বল গিয়ে আঘাত হানে স্টাম্পে।   আর তাতেই আউট হয়ে যায় মুশফিক।

বোলিংয়ে  এসেই ডেভিড ওয়ার্নারের উইকেট পেতে পারতেন সাকিব আল হাসান। তাকে কাট করতে গিয়ে স্লিপে ক্যাচ দিয়েছিলেন বাঁহাতি এই ওপেনার। বলের লাইন থেকে নিজেকে কেন জানি সরিয়ে নেন সৌম্য সরকার।  ফলে সহজ আউটা  উল্টো চারে পরিনত হয় । ওয়ার্নার জীবন পাওয়ার পর সাজঘরে থাকতেন স্মিথও। মিরাজকে স্টেপ আউট করে খেলতে গিয়ে পরাস্ত হয়ে মুশফিকের স্ট্যাম্পিং থেকে অল্পের জন্য রক্ষা পান অজি অধিনায়ক ।মিরাজের পরের ওভারে আরেকবার সুযোগ দেন স্মিথ। শর্ট লেগে থাকা ফিল্ডার ক্যাচ লুফে নিতে ব্যর্থ হন। জীবন পাওয়া দুই অভিজ্ঞ অজি ব্যাটসম্যানদের মধ্যে সাহসী ব্যাটিং দিনের শেষে দুই উইকেটে ১০৯ রান নিয়ে তৃতীয় দিনের খেলা শেষ করে অজিরা। ওয়ার্নার ৭৫ ও  স্মিথ ২৫ রানে চতুর্থ দিনের খেলা শুরু করবেন। জয়ের জন্য আরও ১৫৬ রান দরকার অস্ট্রেলিয়ানদের,  বাংলাদেশের দরকার আট উইকেট।

এশিয়ায় রান তাড়া করে জয়ের ক্ষেত্রে অস্ট্রেলিয়ার রেকর্ড খুব একটা ভালো না। রেকর্ড অনুযায়ী চতুর্থ ইনিংসে রান তাড়া করে জেতা আরো কঠিন তাদের জন্য। আর এ হিসেবে বলা চলে, ঢাকা টেস্টে বাংলাদেশের বিপক্ষে জিততে হলে বেশ কঠিন পথই পাড়ি দিতে হবে তাদের। সেক্ষেত্রে বোলিং আর ফিল্ডিং বিভাগকে যথার্থ দায়িত্ব পালন করতে হবে ।

ছবি: ইএসপিএন

 

প্রাণের বাংলায় প্রকাশিত সব লেখা লেখকের নিজস্ব মতামত। লেখা সংক্রান্ত কোনো ধরনের দায় প্রাণের বাংলা বহন করবে না। প্রাণের বাংলার কোনো লেখা কেউ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করতে পারবেন না তবে সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করতে পারবেন । লেখা সংক্রান্ত কোনো অভিযোগ অথবা নতুন লেখা পাঠাতে যোগাযোগ করুন amar@pranerbangla.com